No icon

সিলেটের লাক্কাতুরায় জমে উঠছে কোরবানির পশুর হাট

সিলেট: কয়েকদিন পর পালিত হবে মুসলমানদের দ্বিতীয় বড় ধর্মীয় উৎসব পবিত্র ঈদুল আজহা। এদিকে কোরবানির হাটকে সামনে রেখে বিভিন্ন আকৃতির হৃষ্টপুষ্ট পশুতে ভরে উঠেছে সিলেট বিভাগীয় স্টেডিয়াম সংলগ্ন লাক্কাতুরা কোরবানির পশুর হাটে। এখনও দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে হাটে স্রোতের বেগে পশু আসছে। বিক্রি এখনও সেভাবে না হলেও ক্রেতারা যাচ্ছেন এবং ঘুরে ঘুরে দেখছেন। বিক্রেতারাও ভালো দামে বিক্রির ব্যাপারে আশাবাদী। সবমিলে জমে উঠছে সিলেটের লাক্কাতুরা কোরবানির পশুর হাট। এদিকে লাক্কাতুরা পশুর হাটে ২৪ ঘণ্টার জন্য পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। একই সঙ্গে ইজারাদারদের পক্ষ থেকে পর্যাপ্ত স্বেচ্ছাসেবক নিয়োগ করা হয়েছে। হাট ও আশপাশের এলাকায় সার্বক্ষণিক টহল দিচ্ছে  আইনশৃক্সখলা বাহিনী। প্রাণিসম্পদ অধিদফতরের পক্ষ থেকে ব্যবস্থা করা হয়েছে সার্বক্ষণিক পশু চিকিৎসকের। এছাড়া হাটে রয়েছে জাল টাকা চিহ্নিতকরণ মেশিন, ওয়াচ টাওয়ার, ক্লোজ সার্কিট ক্যামেরা এবং ব্যবসায়ীদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে সার্বক্ষণিক পুলিশের মানি এসকর্ট টিম। সরেজমিন ঘুরে দেখা গেছে, লাক্কাতুরা পশুর হাটে বিপুলসংখ্যক গরু ও ছাগল উঠেছে। ঈদকে কেন্দ্র করে সারা দিন ট্রাকে ট্রাকে গরু আসতে দেখা গেছে। হাটের সার্বিক সহযোগিতার দায়িত্বে থাকা একাধিক ব্যক্তি জানান, বিক্রেতা ও ক্রেতাদের নিরাপত্তাকে গুরুত্ব দেয়া হয়েছে। পুরো হাটে প্রায় শতাধিক ক্লোজড-সার্কিট ক্যামেরা স্থাপন করা হয়েছে। ৫টি স্থান থেকে সেটি মনিটরিং করা হচ্ছে। নিজস্ব স্বেচ্ছাসেবক সদস্য প্রায় তিন শতাধিক। জাল টাকা শনাক্তে হাট মালিকের পক্ষ থেকে নির্দিষ্ট বুথে মেশিন বসানো হয়েছে। পাশাপাশি পুলিশ ও বেসরকারি ব্যাংকের পক্স থেকেও জাল টাকা শনাক্তে মেশিন রাখা হয়েছে।
লাক্কাতুরা পশুর হাটের ইজারাদার রুবেল আহমদ ও এম এ মঈন খান বাবলু বলেন, আশা করি এবার এ হাটে পশুর কোনো সংকট হবে না। সব ধরনের ক্রেতাই তাদের সামর্থ্য অনুযায়ী পশু কিনতে পারবেন। 


এম এ মঈন খান বাবলু
সিলেট 

Comment As:

Comment (0)